বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র অনলাইন বইপড়া কর্মসূচি
বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র অনলাইন বইপড়া কর্মসূচি

আলোর পাঠশালা

বড় মানুষ, সম্পন্ন-মানুষেরাই শুধু পারে একটি বড় দেশ আর বড় জাতিকে গড়ে তুলতে। আমাদের সামনে আগামীদিনের যে মহান বাংলাদেশ অপেক্ষমাণ তার সুযোগ্য নির্মাণের জন্য আজ আমাদের প্রয়োজন অনেক সমৃদ্ধ মানুষের। বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র মানবসভ্যতার শ্রেষ্ঠ বইগুলো নিয়মিত পড়ানোর ভেতর দিয়ে দেশের মানুষের চেতনা জগৎকে বড় করে তোলার উদ্দেশ্যে নানান কর্মসূচি বাস্তবায়ন করেছে। আমরা জ্ঞানচর্চাকে সারাদেশের প্রতিটি অঙ্গনে ছড়িয়ে দিতে চাই। ভাল বইপড়ার মাধ্যমে সারা দেশের মানুষের পাঠাভ্যাস বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিশ্বসাহিত্য কে্ন্দ্র নতুন নতুন উদ্যোগ গ্রহণ অব্যহত রেখেছে। তারই ধারাবাহিকতায় শুরু হচ্ছে অনলাইন বইপড়া কর্মসূচি। বর্তমানে হাতের নাগালে চলে এসেছে তথ্যপ্রযুক্তি, এর বহুমাত্রিক ব্যবহার ক্রমশ বাড়ছে। বই আর কেবল কাগজে ছাপা, বাঁধানো মলাট দেয়া পরিসরে সীমাবদ্ধ নেই। কাগজের বইয়ের পাশাপাশি ইলেকট্রনিক বা ই-বুক বা ডিজিটাল ভার্সনে বইপড়ার পাঠক সংখ্যা ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পাচ্ছে। উন্নত বিশ্বে ই-বুক এখন বেশ জনপ্রিয়। আমাদের দেশে ল্যাপটপ, ট্যাবলেট কম্পিউটার, ই-বুক রিডার  এবং সাম্প্রতিক সময়ের মোবাইল ফোনসেটগুলো ইলেকট্রনিক বই পড়াটাকে অনেক সহজ করে দিয়েছে।

বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র গ্রামীণফোনের সার্বিক সহযোগিতায় নিজস্ব প্রকাশনার নির্বাচিত কিছু বই নিয়ে অনলাইনে ‘আলোর পাঠশালা’ নামে বইপড়া কর্মসূচি শুরু করেছে। বইপড়াকে উৎসাহিত করার জন্য রয়েছে পুরস্কারের ব্যবস্থা। পুরস্কার হিসাবে দেয়া হবে বই। আগ্রহী যে কেউ সদস্য হয়ে বইপড়া কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করতে পারবেন। যাঁরা সদস্য হবেন তাঁরা খুব সহজেই ইন্টারনেট থেকে বিনামূল্যে বইগুলো ডাউনলোড করে পড়তে পারবেন। ভবিষ্যতে এ কর্মসূচির ব্যাপ্তি আরো বাড়ানো হবে। বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের লক্ষ্য আগামী দিনের সমৃদ্ধ বাংলাদেশ। আজকের নাগরিকদের সমৃদ্ধ মানুষ হিসাবে গড়ে-তোলার দায়িত্বেই বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র প্রধানত নিয়োজিত। তাই উৎকর্ষের এই ভোজে সকলেই বিশেষভাবে আমন্ত্রিত।
 
কর্মসূচিতে অংশগ্রহণের নিয়মাবলী------